কয়েকটি সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাণীর নাম (Names of Some of the Most Primitive Animals)
By Staff Reporter | 19-09-04

জীববিজ্ঞান এর পাশ্চাত্য প্রতিশব্দ “বায়োলজি” যেটি দুটি গ্রিক শব্দ “বায়োস” যার অর্থ জীবন,  এবং “লগীয়া” যার অর্থ জ্ঞান থেকে এসেছে, প্রথম ১৮০০ সালে জার্মানিতে ব্যবহৃত হয় এবং পরবর্তীতে ফরাসি প্রকৃতিবিদ জঁ-বাতিস্ত দ্য লামার্ক জীবিত বস্তু সংক্রান্ত অনেকগুলি শাস্ত্রের ধারক নাম হিসেবে এটির প্রচলন করেন। পরবর্তীতে ইংরেজ প্রাণীবিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ টমাস হেনরি হাক্সলি জীববিজ্ঞানকে একটি একত্রীকারক শাস্ত্র হিসেবে প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। হাক্সলি জোর দিয়ে বলেন যে উদ্ভিদ ও প্রাণী বিষয়ক শাস্ত্রের প্রথাগত বিভাজন অর্থহীন এবং সমস্ত জীবিত বস্তু একত্রে আলোচনা করা উচিত। হাক্সলির এই ধারণা আজ আরও বেশি করে প্রযোজ্য, কেননা বিজ্ঞানীরা বুঝতে পেরেছেন যে অনেক নিম্ন স্তরের জীব প্রাণী বা উদ্ভিদ কোনটাই নয়। বর্তমানে জীববিজ্ঞান আণবিক, কোষীয়, জীবদেহ ও জীবসংগ্রহ – এই চারটি মূল স্তরক্রমে বিভক্ত।

বিজ্ঞানের একটি শাখা যেখানে জীব ও জীবন সং;ক্রান্ত গবেষণা করা হয়। তাদের গঠন, বৃদ্ধি, বিবর্তন, শ্রেণীবিন্যাসবিদ্যার আলোচনাও এর অন্তর্ভুক্ত। আধুনিক জীববিজ্ঞান খুব বিস্তৃত একটি ক্ষেত্র, যেটির অনেক শাখা-উপশাখা আছে। আধুনিক জীববিজ্ঞান বলে, কোষ হচ্ছে জীবনের মূল একক, আর জীন হল বংশগতিবিদ্যার মূল একক। আর বিবর্তন হল একমাত্র প্রক্রিয়া, যার মাধ্যমে নতুন প্রজাতির জীব সৃষ্টি হয।

প্রাণী: যার ইংরেজি প্রতিশব্দ ” অনিমা ” থেকে এসেছে। বহুকোষী এবং সুকেন্দ্রিক জীবের একটি বৃহৎ গোষ্ঠী।এরা এনিমেলিয়া বা মেটাজোয়া রাজ্যের অন্তর্গত। বয়স কিছুটা বাড়তেই প্রায় সব প্রাণীর দেহাবয়ব সুস্থির হয়ে যায়। অবশ্য কিছু প্রাণীকে জীবনের নির্দিষ্ট সময়ে রূপান্তরিত হতেও দেখা যায়। অধিকাংশ প্রাণীই চলনক্ষম, অর্থাৎ তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে পারে। অধিকাংশ প্রাণীই তারা জীবন ধারণের জন্য অন্য জীবের উপর নির্ভরশীল।

এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত প্রাচীনতম প্রাণীটি আজ থেকে ৫৪২ মিলিয়ন বছর পূর্বে পৃথিবীতে বাস করতো।কোনো এক সময়ে একটি জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হয়েছে যার মাধ্যমেজীববিজ্ঞানীদের সাহায্যে আমরা  জানতে পেরেছি। তাদের গবেষণা থেকে জানা যায় যে জলের মধ্যেই প্রথম প্রাণীর আবির্ভাব ঘটেছিল যার নাম হল অ্যামিবা। এই রকম ভাবে পৃথিবীতে কয়েকটি বড় আকারের প্রাণীর সৃষ্টি হয়েছিল।

যাদেরকে বর্তমানে জীব বিজ্ঞানীরা ” সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাণী ” বলে এক আখ্যা দিয়ে থাকেন। এবং সেই সকল সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাণীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্রাণীগুলির নিম্নরূপ হল:

সর্বাপেক্ষা আদিম স্তন্যপায়ী – একিডনা

সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাইমেট – লেমুর

সর্বাপেক্ষা আদিম বানর – গিবন

সর্বাপেক্ষা আদিম সরীসৃপ – স্পেনোডন বা তুয়াতারা

সর্বাপেক্ষা আদিম মোলাস্কা – কিটোডারমা

সর্বাপেক্ষা আদিম সন্ধিপদ – পেরিপেটাস

সর্বাপেক্ষা আদিম অঙ্গুরিমাল – পলিগার্ডিয়াস

সর্বাপেক্ষা আদিম কৃমি – প্ল্যানেরিয়া

কয়েকটি সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাণীর নাম (Names of Some of the Most Primitive Animals)

By Staff Reporter | 19-09-04

জীববিজ্ঞান এর পাশ্চাত্য প্রতিশব্দ “বায়োলজি” যেটি দুটি গ্রিক শব্দ “বায়োস” যার অর্থ জীবন,  এবং “লগীয়া” যার অর্থ জ্ঞান থেকে এসেছে, প্রথম ১৮০০ সালে জার্মানিতে ব্যবহৃত হয় এবং পরবর্তীতে ফরাসি প্রকৃতিবিদ জঁ-বাতিস্ত দ্য লামার্ক জীবিত বস্তু সংক্রান্ত অনেকগুলি শাস্ত্রের ধারক নাম হিসেবে এটির প্রচলন করেন। পরবর্তীতে ইংরেজ প্রাণীবিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ টমাস হেনরি হাক্সলি জীববিজ্ঞানকে একটি একত্রীকারক শাস্ত্র হিসেবে প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। হাক্সলি জোর দিয়ে বলেন যে উদ্ভিদ ও প্রাণী বিষয়ক শাস্ত্রের প্রথাগত বিভাজন অর্থহীন এবং সমস্ত জীবিত বস্তু একত্রে আলোচনা করা উচিত। হাক্সলির এই ধারণা আজ আরও বেশি করে প্রযোজ্য, কেননা বিজ্ঞানীরা বুঝতে পেরেছেন যে অনেক নিম্ন স্তরের জীব প্রাণী বা উদ্ভিদ কোনটাই নয়। বর্তমানে জীববিজ্ঞান আণবিক, কোষীয়, জীবদেহ ও জীবসংগ্রহ – এই চারটি মূল স্তরক্রমে বিভক্ত।

বিজ্ঞানের একটি শাখা যেখানে জীব ও জীবন সং;ক্রান্ত গবেষণা করা হয়। তাদের গঠন, বৃদ্ধি, বিবর্তন, শ্রেণীবিন্যাসবিদ্যার আলোচনাও এর অন্তর্ভুক্ত। আধুনিক জীববিজ্ঞান খুব বিস্তৃত একটি ক্ষেত্র, যেটির অনেক শাখা-উপশাখা আছে। আধুনিক জীববিজ্ঞান বলে, কোষ হচ্ছে জীবনের মূল একক, আর জীন হল বংশগতিবিদ্যার মূল একক। আর বিবর্তন হল একমাত্র প্রক্রিয়া, যার মাধ্যমে নতুন প্রজাতির জীব সৃষ্টি হয।

প্রাণী: যার ইংরেজি প্রতিশব্দ ” অনিমা ” থেকে এসেছে। বহুকোষী এবং সুকেন্দ্রিক জীবের একটি বৃহৎ গোষ্ঠী।এরা এনিমেলিয়া বা মেটাজোয়া রাজ্যের অন্তর্গত। বয়স কিছুটা বাড়তেই প্রায় সব প্রাণীর দেহাবয়ব সুস্থির হয়ে যায়। অবশ্য কিছু প্রাণীকে জীবনের নির্দিষ্ট সময়ে রূপান্তরিত হতেও দেখা যায়। অধিকাংশ প্রাণীই চলনক্ষম, অর্থাৎ তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে পারে। অধিকাংশ প্রাণীই তারা জীবন ধারণের জন্য অন্য জীবের উপর নির্ভরশীল।

এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত প্রাচীনতম প্রাণীটি আজ থেকে ৫৪২ মিলিয়ন বছর পূর্বে পৃথিবীতে বাস করতো।কোনো এক সময়ে একটি জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হয়েছে যার মাধ্যমেজীববিজ্ঞানীদের সাহায্যে আমরা  জানতে পেরেছি। তাদের গবেষণা থেকে জানা যায় যে জলের মধ্যেই প্রথম প্রাণীর আবির্ভাব ঘটেছিল যার নাম হল অ্যামিবা। এই রকম ভাবে পৃথিবীতে কয়েকটি বড় আকারের প্রাণীর সৃষ্টি হয়েছিল।

যাদেরকে বর্তমানে জীব বিজ্ঞানীরা ” সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাণী ” বলে এক আখ্যা দিয়ে থাকেন। এবং সেই সকল সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাণীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্রাণীগুলির নিম্নরূপ হল:

সর্বাপেক্ষা আদিম স্তন্যপায়ী – একিডনা

সর্বাপেক্ষা আদিম প্রাইমেট – লেমুর

সর্বাপেক্ষা আদিম বানর – গিবন

সর্বাপেক্ষা আদিম সরীসৃপ – স্পেনোডন বা তুয়াতারা

সর্বাপেক্ষা আদিম মোলাস্কা – কিটোডারমা

সর্বাপেক্ষা আদিম সন্ধিপদ – পেরিপেটাস

সর্বাপেক্ষা আদিম অঙ্গুরিমাল – পলিগার্ডিয়াস

সর্বাপেক্ষা আদিম কৃমি – প্ল্যানেরিয়া

0 0 vote
Article Rating
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments